বাংলা সাহিত্য ও ব্যাকরণ

উপমান ও উপমিত কর্মধারয় সমাস চেনার সহজ উপায় | উপমিত VS উপমান কর্মধারয় সমাস| Shortcut techniques of Somas

উপমিত ও উপমান কর্মধারয় সমাস এর পার্থক্য

সমাস আমরা সকলেই মোটামোটি পারি। তারপরেও পরীক্ষায় উপমান ও উপমিত কর্মধারয় সমাস আসলে এই দুটির মধ্যে আমরা ভুল করে আসি। আজকের এই পোস্ট টি ভাল করে পড়ে নোট করে রেখে দিন। আশা করি আর কখনো এই ২ টি সমাস ভুল হবেনা। মনে রাখবেন যেকোন নিয়োগ পরীক্ষায় সমাস থেকে প্রশ্ন আসেই।

উপমিত: ব্যাসবাক্যের বিবৃতিটি যদি মিথ্যা বা অসমান হয় তাহলে উপমিত কর্মধারয় সমাস হয়।

সংক্ষেপে চেনার উপায়: Noun+ Adjective

উদাহরণ: মুখ চন্দ্রের ন্যায়=মুখচন্দ্র

ব্যাখ্যা: বিবৃতিটি মিথ্যা;কারণ মুখ কখনো চন্দ্রের মতো হতে পারে না। অতএব,বিবৃতিটি

মিথ্যা তাই এটি উপমিত কর্মধারয়

পুরুষ সিংহের ন্যায়=পুরুষসিংহ
ব্যাখ্যা: বিবৃতিটি মিথ্যা;কারণ পুরুষ সিংহের মতো হতে পারে না। এটি অসমান বিবৃতি। পুরুষ একশ্রেণির আর সিংহ অন্য শ্রেণির।

উপমান: ব্যাসবাক্যের বিবৃতিটি যদি সত্য বা সমান হলে,উপমান কর্মধারয় সমাস হয়।

উদাহরণ: অরুণের ন্যায় রাঙ্গা=অরুণ রাঙ্গা

সংক্ষেপে চেনার উপায়: Noun+Noun

ব্যাখ্যা: বিবৃতিটি সত্য কারণ,অরুণ মানে লাল আবার রাঙ্গা মানেও লাল সুতরাং সত্য বিবৃতি তাই উপমান কর্মধারয় সমাস হবে।

ঠিক একইভাবে:
তুষারের ন্যায় শুভ্র=তুষারশুভ্র
ব্যাখ্যা: বিবৃতিটি সত্য কারণ তুষার যেমন
সাদা ঠিক তেমনি শুভ্রের রংও সাদা।
অতএব,এটি উপমান কর্মধারয়

Tags

Related Articles

Back to top button
Close